জেলা পরিষদের ইতিহাস

The page is under maintenance, please wait…

জেলা পরিষদের ইতিহাস



১। পটভূমিকা, নির্বাচন ও সংগঠন:-

জেলা পরিষদ বাংলাদেশের প্রাচীন এক স্থানীয় সরকার ব্যবস্থা। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন নামে জেলা পরিষদকে অবহিত করা হয়েছে।১৮৮৫ সালে তথানিন্তন বৃটিশ সরকার কর্তৃক স্থানীয় স্বায়ত্ব শাসন আইন ১৮৮৫ পাশ হলে শতাব্দী প্রাচীন রাজশাহী জেলা বোর্ড পরবর্তী বছর অর্থাৎ ১৮৮৬ সালের অক্টোবর মাসে গঠিত হয়। মি: এ, এইচ, রডক্, রাজশাহীর জেলা ম্যাজিষ্টেট পদাধিকার বলে এই নব গঠিত বোর্ডের প্রথম চেয়ারম্যানের আসন অলংকৃত করেন। সরকার কর্তৃক জেলার কিছু গন্যমান্য ভদ্রমহোল এবং উর্দ্ধতন কর্মকর্তাগণ এই বোর্ডের সদস্য মনোনীত হন। এই ভাবে ১৯১৯ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন জেলা ম্যাজিষ্ট্রেটগণ জেলা বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন।

অত:পর ১৯২০ সালে জেলা বোর্ডের কার্যকরী কমিটি গঠনের জন্য সমগ্র জেলার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত নির্বাচনে জনাব খান বাহাদুর এমাদুদ্দীন আহমেদ বি, এল, এম, এল, ও বাবু কুমুদ নাথ দত্ত যথাক্রমে জেলা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এছাড়া উক্ত কমিটিতে নিম্ন লিখিত ব্যক্তিবর্গ সদস্য নির্বাচিত ও মনোনীত হন। (উল্লেখ্য যে, ১৯২৬ সালে দ্বিতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এবং নির্বাচনে যান বাহদুর এমাদুদ্দীন সাহেব চেয়ারম্যান পদে পূন: নির্বাচতি হন):-

এরপর ১৯৩০ সালে জেলা বোর্ডের তৃতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে নাটোরের রাজা বিরেন্দ্র নাথ রায় চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এবং তিনি তার সদস্যদের নিয়ে ১৯৩৫ সাল পর্যন্ত দক্ষতার সাথে দায়িত্ব সম্পাদন করেন।

পরবর্তীতে ১৯৩৫ সালে জেলা বোর্ডের চতুর্থ বারের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে দিঘাপতিয়ার রাজা প্রমোদ নাথ চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনিও তার সদস্যকে নিয়ে ১৯৪০ সাল পর্যন্ত দক্ষভাবে দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে নি:স্বার্থ ভাবে জেলা বোর্ডের সেবা করে যান।

১৯৪০ সালে জেলা বোর্ডের প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত নির্বাচনে জনাব মনিরুদ্দীন আকন্দ বি,এল, চেয়ারম্যান, জনাব মোবারক আলী বি,এল ১ম ভাইস-চেয়ারম্যান এবং জনাব এম,এস, আবুল কাশেম ২য় ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়।

এই কমিটি ১৯৫৬ সাল পর্যন্ত সুদীর্ঘ তাঁদের সুনিপুন কর্তব্য পালনের মাধ্যমে জেলা বোর্ডের সেবা করে যান। উল্লেখ্য যে, জনাব মনিরুদ্দীন আকন্দ সুদীর্ঘ প্রায় ১৮ বছর জেলা বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব আসীন থাকেন। পরবর্তীকালে তার এই সুদীর্ঘ কাজের নি:স্বার্থ সেবার স্বীকৃতি হিসাবে তাঁর স্মৃতিকে স্মরণ করে রাজশাহী জেলা বোর্ডের একটি রাস্তার নাম “মনিরুদ্দীন আকন্দ রোড” জেলা পরিষদের পুরাতন ভবনের সভাকক্ষের নাম “মনিরুদ্দীন আকন্দ হল” এবং জেলা পরিষদের সম্প্রতি নির্মিত একটি বাজারের নাম “মনি বাজার” রাখা হয়েছিল।

জেলা বোর্ডের ষষ্ঠ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৫৬ সালে এবং নির্বাচনে জনাব আব্দুল সামাদ ও জনাব মখলেসুর রহমান চৌধুরী যথাক্রমে চেয়ারম্যান ও ভাইস-চেয়ারম্যান এবং নিম্ন লিখিত ব্যক্তিকবর্গ সদস্য নির্বাচিত হন:-


১৯৫৮ সালে দেশে সামরিক আইন বলবত হ’লে এই কমিটি বাতিল করা হয় এবং নির্বাচিত পূর্ব রীতিতে জেলা প্রশাসককে চেয়ারম্যানের দায়িত্ব অর্পন করা হয়।

১০ই নভেম্বর, ১৯৫৯ হ’তে রাজশাহী জেলা বোর্ডের চেয়ারম্যান পদের দায়িত্ব রাজশাহী জেলার জেলা প্রশাসক সাহেব পদাধিকার বলে পালন করে যাচ্ছেন। জনাব সামসুর রহমান রাজশাহীর জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট সর্বপ্রথম পদাধিকার বলে জেলা বোর্ডের চেয়ারম্যান পদের দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৯৬০ দশকের প্রথম নিকে বুনিয়াদী গণতন্ত্রের সদস্যদের ভোটে জেলা বোর্ডের সপ্তম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এতে জনাব মজিবর রহমান ভাইস-চেয়ারম্যান এবং নিম্ন লিখিত ব্যক্তিগন সদস্য নির্বাচিত হন। (এতদ্ব্যতীত এই কিমিটিতে পদধিকার বলে মনোনীত সদস্যও ছিলেন):


এতপর জেলা বোর্ডের ৮ম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৬০ সালের দ্বিতীয়াদ্ধে। এই নির্বাচনও বি,ডি, মেম্বারগণের ভোটে অনুষ্ঠিত হয়। এরপর আর কোন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়নি।। এই নির্বাচনে জনাব মখলেসুর রহমান চৌধুরী সদস্যগণের ভোটে ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। নিম্ন বর্ণিত সদস্যবৃন্দের মধ্যে ক্রমিক নং ১ থেকে ১৫ পর্যন্ত বি, ডি, ভোটে নির্বাচিত এবং ক্রমিক নং ১৬ হতে ৩০ পর্যন্ত সদস্যবৃন্দ পদাধিকার বলে মনোনীত হন।

জেলা প্রশাসক, রাজশাহী চেয়ারম্যান,

বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর জেলা প্রশাসকরাই জেলা পরিষদের দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৮৮ সালে জেলা পরিষদ আইন হবার পর ঐ বছর অক্টোবর মাসে জনাব মো: মেসবাহ উদ্দিন আহমদকে সরকার রাজশাহী জেলা পরিষদের উপ-মন্ত্রীর মর্যাদায় চেয়ারম্যানের দায়িত্ব প্রদান হয়। জনাব মো: মেসবাহ উদ্দিনের পর অল্প কিছু দিনের জন্য চেয়ারম্যান দয়িত্ব পালন করেন জনাব মো: দুরুল হুদা।

২০০০ সালে নতুন করে জেলা পরিষদ আইন প্রণয়ন করা হয়। এরপর ২০০১ সালে থেকে জেলা পরিষদে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার এবং উপ-সচিবকে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ করা হয়। ২০১৭ সালে দীর্ঘ দিন পর নির্বাচনের মাধ্যমে রাজশাহী জেলা পরিষদের নিম্নক্ত পরিষদ গঠিত হয়।

গত ১১-০১-২০১৭ খ্রি. তারিখ থেকে উল্লিখিত সদস্য এবং চেয়ারম্যানের সমন্বয় রাজশাহী জেলা পরিষদ সত্যতা দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালন করছেন।